খুলেছে রফতানিমুখী শিল্প কারখানা, মানতে হচ্ছে ১৫ শর্ত

দেশব্যাপী কঠোর লকডাউনের মধ্যে রফতানিমুখী তৈরি পোশাক শিল্প কারখানা রোববার থেকে চালু হয়েছে। আজ সকাল থেকেই কাজে যোগ দিচ্ছেন পোশাক কারখানার সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা।
শিল্প শ্রমিকদের কর্মস্থলে ফিরতে রোববার রাত পর্যন্ত গণপরিবহণ চলাচল করবে। পোশাক কারখানা খোলার সিদ্ধান্তে শুক্রবার থেকেই ঢাকায় ফিরতে শুরু করেন পোশাক শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্টারা। শনিবার রাতেও দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নানা ভাবে ঢাকায় ফিরছেন অনেক শ্রমিক।

শনিবার রাতে গার্মেন্টস মালিকদের কারখানায় স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত ১৫টি শর্ত মানতে একটি চিঠি দিয়েছে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ। সংগঠনের সভাপতি ফারুক হাসানের স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে দেওয়া শর্তগুলো হলো:

১. কারখানা খোলা এবং ছুটির সময়ে গেট বা কারখানার অভ্যন্তরে শ্রমিকদের ভিড় এড়ানোর লক্ষ্যে কারখানায় প্রবেশ ও কারখানা ত্যাগ করার বিষয়ে Staggered Time নির্ধারণ করার ওপর জোর দেওয়া।

২. শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে গমনাগমন পথের ব্যবহার নিশ্চিত করা (রশি/শিকল দিয়ে পুরুষ ও নারী শ্রমিকদের জন্য আলাদা লাইন করে কারখানায় প্রবেশ এবং বাহির নিশ্চিত করতে হবে।

৩. সম্ভাব্য ক্ষেত্রে কর্মঘণ্টা বিভিন্ন শিফটে নির্ধারণ করা।

৪. ফ্লোরে বা কাজের স্থানগুলোতে ভিড় এড়িয়ে চলতে শ্রমিকদের উৎসাহিত করা।

৫. দুপুরের খাবারের বিরতি বা অন্যান্য বিরতি যথাসম্ভব ঝঃধমমবৎবফ ঞরসব (নির্দিষ্ট বিরতি) এ করা।

৬. কারখানায় প্রবেশের সময় শ্রমিকদের দেহের তাপমাত্রা পরিমাপ করা অথবা প্রয়োজনে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করা।

৭. কর্মস্থলে (কারখানা বা প্রতিষ্ঠান) সহজে দৃষ্টিগোচর হয় এমন স্থানে হাত পরিষ্কার সামগ্রী রাখা এবং নিয়মিত সেগুলো পুনর্ভর্তি করা।

৮. পর্যাপ্ত সংখ্যক সাবানের ব্যবস্থাসহ প্রধান ফটকে হাত ধৌতকরণ-স্থান নির্দিষ্ট করা।

সব ধরণের কারখানা খুলতে চান মালিকরা

৯. কারখানায় প্রবেশের সময় সব শ্রমিক-কর্মচারীর হাত ধৌতকরণ বা জীবাণুমুক্তকরণ নিশ্চিত করা।

১০. হাত ধৌতকরণ বা জীবাণুমুক্তকরণের প্রতিটি স্থান/পানির কলের মধ্যে ন্যূনতম এক মিটার দূরত্ব নিশ্চিত করা।

১১. হাত ধৌতকরণ এবং জীবাণুমুক্তকরণের সঠিক পদ্ধতিগত নির্দেশাবলী দৃষ্টিগোচর স্থানে প্রদর্শন করা (যেমন: উভয়হাত কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড ধরে ধৌত করা)।

১২. হাত ধোয়ার পর শুকানোর জন্য ড্রায়ার বা টিস্যু পেপারের ব্যবস্থা রাখা।

১৩. সার্বক্ষণিক মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করা।

১৪. কারখানার বাইরে সভা সমাবেশ, গণপরিবহন এবং ভিড় এড়িয়ে চলতে শ্রমিকদের উৎসাহিত করা।

১৫. করোনা সংক্রমণের উপসর্গ সম্পর্কে শ্রমিক-কর্মচারীদের অবহিত করা।