‘কৃত্রিম সূর্য’ চালু করলেন জার্মানির বিজ্ঞানীরা

নিউজ ডেস্ক: জার্মানির বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি চালু করেছেন পৃথিবীর সবচাইতে বড় “কৃত্রিম সূর্য”। একে ব্যবহার করা হতে পারে হাইড্রোজেন তৈরির কাজে। এর নাম হলো ‘সিনলাইট’।

জার্মানির জুলিক শহরে অবস্থিত এবং জার্মান অ্যারোস্পেস সেন্টারের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত সিনলাইটের আছে ১৪৯টি জেনন ল্যাম্প। এগুলো সূর্যের আলোকে একটি নির্দিষ্ট বিন্দুতে একীভূত করে, পানি বাষ্পীভূত করে এবং হাইড্রোজেন ও অক্সিজেনে ভেঙ্গে পড়ে।

এই মেশিনের উচ্চতা ৪৫ ফুট এবং প্রস্থ ৫২ ফিট। ৮ ইঞ্চি বাই ৮ ইঞ্চি পরিমাণ এলাকায় ফোকাস করলে সে ৩ হাজার ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত তাপ উৎপন্ন করতে পারে। একে টেস্ট করার সময়টা ছিল ১৫-২০ মিনিট। এ সময়ে কিছু পরিমাণে হাইড্রোজেন উৎপন্ন করা হয়। কিন্তু এর ক্ষমতা আছে ঘন্টার পর ঘন্টা এমনকি পুরো একদিন পর্যন্ত কাজ করার।

“গত ২ মাস ধরে আমরা একে পরীক্ষা করছি, আর সাম্প্রতিক এই পরীক্ষা ছিল জনগণের জন্য উন্মুক্ত,” বলেন এই প্রজেক্টের সাথে জড়িত রিসার্চ এঞ্জিনিয়ার দিমিত্রি ল্যাবার।

এই বিশাল যন্ত্রটির ল্যাম্পগুলোর ক্ষমতা ৩৫০ কিলোওয়াট। পৃথিবীতে সোলার রেডিয়েশনের ১০ হাজার গুণ পরিমাণ উৎপাদন করতে পারে এটি। এর ইউভি রেডিয়েশনও সূর্যের সমান। একটি ছোট রিয়াক্টর ডিভাইসের ভেতরে রাখা মেটাল শিটের ওপর একে ফোকাস করা হলে সে পানি ভেঙ্গে হাইড্রোজেন এবং অক্সিজেন তৈরি করতে পারে।

হাইড্রোজেন খুবই কার্যকরী একটি মৌল। কোনো কার্বন নির্গত করা ছাড়াই তাকে জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করা যায়। কিন্তু একে আলাদা করে পাওয়া সহজ নয়। এরকম মেশিনের সাহায্যেই একে তৈরি করতে হয়।

সিনলাইটের ধারণাটা কার্যকরী, কিন্তু এই মেশিনটি নয়। কারণ এটি চালাতে অতিরিক্ত বিদ্যুৎ খরচ হয়। আর তা এত তাপ উৎপাদন করে যে ঐ রুমে কোনো মানুষ দাঁড়িয়ে থাকলে সে মুহূর্তে পুড়ে ছাই হয়ে যাবে। কিন্তু এই পদ্ধতি অনুসরণ করে অন্য কোনো যন্ত্র বা পদ্ধতি উদ্ভাবনা করা যাবে যার মাধ্যমে সূর্যকে কাজে লাগিয়ে ব্যবহারযোগ্য পরিমাণে হাইড্রোজেন উৎপাদন করার আশা করছেন গবেষকেরা।